ঘুমানোর সময় আপনি কী ধ্যান করতে পারেন ?

ঘুমানোর সময় কী ধ্যানমগ্ন হওয়া সম্ভব? সদগুরু এটি ব্যাখ্যা করেছেন, যদি আপনি আধ্যাত্মিকতাকে ঘুমের মধ্যে আনার চেষ্টা করেন, আপনি যা পাবেন তা হল একটি খারাপ রাতের বিশ্রামের অভিজ্ঞতা। তিনি বলেছেন, ধ্যান এমন কোনও বিষয় নয় যেটি আপনি করতে পারেন, কিন্তু এই গুণটি যদি নিজের মধ্যে আনতে পারেন, তবে আপনি জেগে থাকুন বা ঘুমন্ত, সেটা আপনাকে ছাড়বে না।
ঘুমানোর সময় আপনি কি ধ্যান করতে পারেন ?
 

প্রশ্নকর্তা: সদগুরু,ঘুমন্ত অবস্থায় কিভাবে ধ্যানমগ্ন হওয়া সম্ভব?

সদগুরু: ওহ্‌, আপনি অনেকগুলো কাজ একসাথে করার মত ধ্যানকেও কার্যকর করতে চান। আপনি কি ধ্যানকে ব্যাবহার করে ঘুমাতে চান নাকি ঘুমের ব্যাবহার করে ধ্যান করতে চান? আপনি কোন উপায়ের কথা বলছেন - আপনি যখন ঘুমাচ্ছেন তখন কিভাবে ধ্যান করবেন নাকি আপনি যখন ধ্যান করছেন তখন কিভাবে ঘুমাবেন?

ভুল প্রশ্ন জিজ্ঞাসা

একটি সুন্দর গল্প রয়েছে যা ইব্রাহিম নামে একজন সুফি মাস্টার-এর সাথে ঘটেছিল। তিনি অনেক শিষ্য একত্র করলেন এবং একদিন ওনার একটি সৎসঙ্গে দুজন ব্যাক্তির সাক্ষাৎ হয়। একটি অভূতপূর্ব সূর্যাস্ত ঘটছিল, কিন্তু তারা দুজনেই মুখ শুকনো করে বসে ছিল।

তারা তাদের ধূমপানের অভ্যাসের সাথে লড়াই করছিল। তারা আলোচনা করছিল, “কেন না আমরা গিয়ে মাস্টারকে জিজ্ঞাসা করি, যে আমরা ধূমপান করতে পারি কিনা? কে জানে? তিনি বেশ বেপরোয়া। তিনি হয়ত বলতে পারেন ঠিক আছে, অথবা এমন কিছু সরবরাহ করতে পারেন যেটি তামাকেরও থেকেও ভালো কিছু।

তাই তারা তাকে আলাদাভাবে জিজ্ঞাসা করবেন এই সিদ্ধান্ত মনস্থির করলেন। পরের দিন আরও একটি অভূতপূর্ব সূর্যাস্ত এলো। দেখা গেল একজন সেই মুখ শুকনো করেই বসে রয়েছে, আর অন্যজন ধূমপান করতে করতে সেখানে এল। সেই হতভাগা ব্যাক্তিটি তার দিকে তাকিয়ে বললেন, “তুমি ধূমপান করছ? তুমি মাস্টারের কথা অমান্য করছ।”

তিনি বললেন, “না।”

হতভাগ্য ব্যাক্তিটি বললেন, আমি কালকে গিয়ে মাস্টারকে জিজ্ঞাসা করেছি, এবং তিনি আমাকে বলেছেন “না, তুমি ধূমপান করতে পার না।”

“তুমি ওনাকে কি জিজ্ঞাসা করেছিলে?”

প্রথম ব্যাক্তিটি বললেন, “আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম, “ধ্যান করার সময় আমি কি ধূমপান করতে পারি?” তিনি না বলেছিলেন।”

তখন অন্য ব্যাক্তিটি বললেন, “এখানেই তো ভুল করেছ তুমি। আমি ওনাকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, “ধূমপান করতে করতে আমি ধ্যান করতে পারি?” এবং তিনি হ্যাঁ বলেছিলেন।”

শুধুমাত্র ঘুম

 

 

আপনি এখন জিজ্ঞাসা করছেন, “আমি কি ঘুমোতে ঘুমোতে ধ্যান করতে পারি?” এই পৃথিবীতে এমন প্রচুর লোক আছেন যারা জেগে থাকা অবস্থাতেও সঠিকভাবে ধ্যান করতে সক্ষম নন। বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রেই, যারা নিজেদের ওপর পর্যাপ্ত কাজ করেছেন, তারা যদি এক ঘণ্টার জন্য ধ্যানে বসেন তার মধ্যে মাত্র তিন মিনিট হয়ত প্রকৃতপক্ষে ধ্যানমগ্ন হবেন। মনঃসংযোগ এই এল, ওই গেল ... এক মুহূর্তের জন্য এল, আবার হারিয়ে গেল।

অন্তত, একটা বিড়াল বা কুকুরের মতো করে ঘুমান। ঘুমের মধ্যে আধ্যাত্মিকতাকে টেনে আনার কোনও প্রয়োজন নেই।

আপনি যতক্ষণই ধ্যান করুন না কেন, সেটিকে আপনার ঘুমের মধ্যে কিভাবে প্রসারিত করা যায় সেটা না ভেবে এটা ভাবা উচিত যে কিভাবে আপনার ধ্যানের মান উন্নত করা যায়। অন্ততপক্ষে, আপনার ঘুম আপনার সমস্ত চিন্তা-ভাবনার দ্বারা দূষিত হওয়া উচিত নয়। নির্বিকার হয়ে ঘুমোন। কথায় আছে ‘মরার মতন ঘুমচ্ছে’। অন্তত, একটা বিড়াল বা কুকুরের মতো করে ঘুমান। ঘুমের মধ্যে আধ্যাত্মিকতাকে টেনে আনার কোনও প্রয়োজন নেই। সজহভাবে ঘুমোন, যেন আপনি মৃত।

নির্বিকার হয়ে ঘুমোন

মৃত মানুষের দেহ শক্ত হয়ে যায়, কিন্তু তারা থাকে এক অত্যন্ত নির্বিকার অবস্থায়। তাদের কেমন দেখতে লাগছে সেটা নিয়ে তাদের কোনও মাথাব্যাথা নেই। ঠিক তেমনভাবেই আপনি যখন ঘুমাচ্ছেন তখন আপনার আশেপাশে কি ঘটছে সেটা নিয়ে আপনার উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত নয়। একটি বিষয় আমি আমেরিকাতে লক্ষ্য করেছি, সকালবেলায় বেশিরভাগ লোকই আপনাকে প্রশ্ন করবে, “আপনি কি ভালো ঘুমিয়েছেন?” আমি কোনদিন এই প্রশ্নটি বুঝতে পারি নি, কারণ, সমস্যাটা কোথায়? কিন্তু আমি দেখি আজকাল প্রচুর মানুষ আছে যাদের সমস্যা আছে। যদি আপনি ঘুমের মধ্যে ধ্যান করার প্রচেষ্টা করেন তাহলে আপনি অবশ্যই সমস্যার সম্মুখীন হবেন। তাই সবকিছুকে পরিত্যাগ করে ঘুমান। যদি আপনি মৃত ব্যাক্তির মত না ঘুমাতে চান, তাহলে অন্তত একটি শিশুর মত ঘুমান। মার্কিন রিপাবলিকান রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী জন ম্যাককেইন এই প্রসঙ্গে একটি খুব সুন্দর কথা বলেছিলেন। যখন তিনি ওবামার কাছে নির্বাচনে হেরে গেলেন সবাই তাকে জিজ্ঞাসা করলেন, “কেমন লাগছে আপনার?” তিনি বলেছিলেন, “আমি আজ কাল একটি বাচ্চার মত ঘুমাচ্ছি। প্রতি দুই ঘণ্টায় আমি জেগে উঠছি, কাঁদছি আর আবার ঘুমিয়ে পড়ছি।” এটি লোকটির একটি চমৎকার দিক। ব্যার্থতার মধ্যেও নিজের রসিকতাকে বজায় রাখতে পারাটা খুবই ভাল গুণ।

ধ্যানমগ্ন হওয়ার গুণ

যখন এই গুণটি আপনার জন্য একটি জীবিত প্রক্রিয়াতে পরিণত হবে, তখন আপনি জাগ্রত থাকুন বা ঘুমন্ত, ধ্যান প্রক্রিয়া চলতে থাকবে।

ধ্যান কোন ক্রিয়া নয়; এটি একটি গুণ। এটি একটি সুগন্ধ যেটি আপনার মধ্য প্রবেশ করে এবং আপনার জীবনের মধ্যে দিয়ে ঝড়ে পরে। এটা বা ওটা বা কিছু একটা করে এই ব্যাপারটা আসে না। আপনি যদি আপনার শরীর, মন, আবেগ এবং শক্তিকে পর্যাপ্ত পরিমাণে পরিণত করতে পারেন, শুধুমাত্র তারপরেই আপনি ধ্যানমগ্ন হতে পারবেন। আপনি ধ্যানমগ্ন হতে পারেন বা নিজেই ধ্যান হয়ে উঠতে পারেন, কিন্তু আপনি কখনই ধ্যানকে করতে পারেন না। আপনি যদি নিজের মধ্য এই গুণটি স্থাপন করতে পারেন তাহলে এটি আপনাকে ঘুমেও ছেড়ে যাবে না। যখন এই গুণটি আপনার জন্য একটি জীবিত প্রক্রিয়াতে পরিণত হবে, তখন আপনি জাগ্রত থাকুন বা ঘুমন্ত, ধ্যান প্রক্রিয়া চলতে থাকবে। কিন্তু আপনি যদি ঘুমের মধ্যে ধ্যান করার চেষ্টা করেন তাহলে, একমাত্র যেটা ঘটবে সেটা হল, আপনার ভালো ঘুম হবে না।

 

 
 
 
 
  0 Comments
 
 
Login / to join the conversation1