Pranayama – Taking Charge Of The Fundamental Life Force

প্রাণ, অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এক শক্তি, যা কারো সম্পূর্ণ শরীরতন্ত্রের কার্যকারিতা নির্ধারণ করে। সদগুরু দেহে প্রাণের পাঁচটি প্রকাশ, পঞ্চবায়ু এবং ক্রিয়া-যোগ অনুশীলনে সেগুলোর ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেছেন।
Pranayama – Die grundlegende Lebensenergie steuern
 

সদগুরু: যখন আমি প্রাণায়াম বলি, লোকেরা শ্বাসের পদ্ধতি বা শ্বাস-প্রশ্বাসের অনুশীলন হিসাবে ইংরেজিতে অনুবাদ করে, যা এটি একেবারেই নয়। "প্রাণ" অর্থ "প্রাণশক্তি", "যম" অর্থ এর উপর নিয়ন্ত্রণ অর্জন করা। সুতরাং, এটি একটি সূক্ষ্ম প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে কেউ তার অভ্যন্তরীণ শক্তির উপর নিয়ন্ত্রণ অর্জন করতে পারে। এই প্রক্রিয়াগুলি তাদের গভীরতার সাথে শেখানো হয় কারণ দেহ ও মনকে স্থিতিশীল করার জন্য অভ্যন্তরীণ শক্তিগুলির রূপান্তর খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  

যেহেতু প্রাণের উপর ব্যক্তিগত কার্মিক স্মৃতির ছাপ রয়েছে, তাই প্রতিটি ব্যক্তির ক্ষেত্রে এটি আলাদা আলাদা ভাবে কাজ করে।

আপনি জীবনে যাই করুন না কেন, কীভাবে আপনার শরীর, আপনার মন এবং আপনার সমগ্র দেহতন্ত্র কাজ করবে তা শেষমেষ আপনার প্রাণের দ্বারাই নির্ধারিত হয়। প্রাণ একটি বুদ্ধিমান শক্তি। যেহেতু প্রাণের উপর ব্যক্তিগত কার্মিক স্মৃতির ছাপ রয়েছে, তাই প্রতিটি ব্যক্তির ক্ষেত্রে এটি আলাদা আলাদা ভাবে কাজ করে। অন্য দিকে, বিদ্যুৎশক্তির স্মৃতি বা বুদ্ধি নেই। এটি একটি ছোট বাল্ব জালাতে পারে, একটি ক্যামেরা চালাতে পারে এবং আরও লক্ষ লক্ষ কাজ করতে পারে, কিন্ত তার বুদ্ধিমত্তার কারণে নয় বরং নির্দিষ্ট যন্ত্রের কারণে যা এটিকে ক্ষমতা দেয়। ভবিষ্যতে স্মার্ট বিদ্যুৎও হতে পারে। আপনি যদি শক্তির ভিতর একটি নির্দিষ্ট স্মৃতির ছাপ ফেলতে পারেন তবে আপনি এটিকে একটি নির্দিষ্ট উপায়ে চালনা করাতে পারেন।  

পাঁচ প্রকারের প্রাণ 

দেহে প্রাণের পাঁচটি মৌলিক প্রকাশ রয়েছে। এই পঞ্চবায়ু – প্রাণ বায়ু, সমান বায়ু, উদানা বায়ু, অপানা বায়ু এবং ব্যয়না বায়ু – মানবতন্ত্রের বিভিন্ন দিককে পরিচালনা করে। শক্তিচালনা ক্রিয়া জাতীয় যোগাভ্যসের মাধ্যমে আপনি পঞ্চবায়ুর দখল নিতে পারেন। আপনি যদি এই পাঁচটি বায়ুতে দক্ষতা অর্জন করেন তবে আপনি বেশিরভাগ অসুস্থতা থেকে মুক্তি পাবেন, বিশেষত মানসিক অসুস্থতা থেকে। আজকের দিনে পৃথিবীতে এর খুব প্রয়োজন। 

আমরা যদি এখনই সক্রিয় না হই, আমাদের জীবনযাত্রার বিভিন্ন উপাদানের কারণে পরবর্তী পঞ্চাশ বছরে মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন, অশান্ত বা বিভ্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে। আমরা নিজেদের জীবনের অনেকগুলি বিষয়কে একেবারে অবহেলার সাথে পরিচালনা করছি, যার জন্য আমরা মূল্য দিতে চলেছি। আপনি যদি নিজের প্রাণের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেন তবে বাহ্যিক পরিস্থিতি যাই হোক না কেন আপনার মানসিক ভারসাম্য বজায় থাকবে। এই মুহুর্তে, অনেক লোকই মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন, যদিও প্রত্যেকের রোগনির্ণয় নাও হতে পারে। 

 

প্রাণায়ামের উপকার 

ধরুন আপনার হাতটি যদি নিজের ইচ্ছে মতো কাজ করে আপনার চোখে খোঁচা দেয়, এবং আপনাকে আঁচড়ায়, মারধর করে – এটি একটি অসুস্থতা। বেশিরভাগ মানুষের মন এই কাজটিই করে। প্রতিদিন এটি তাদের ভিতর থেকে খোঁচায়, কাঁদায়, চিৎকার করায় বা দুশ্চিন্তা তৈরি করে – কতরকম ভাবে এটি তাদের জন্য কষ্ট সৃষ্টি করে। এটি সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্য হলেও এর অর্থ হল অসুস্থতা। মানুষ যে সমস্ত দুর্ভোগ দিনের পর দিন ভুগে চলেছে তা সবই মনের মধ্যে সৃষ্টি হয়। এই অসুস্থতা তৈরি হয়েই গেছে, এবং এটি সামাজিক কাঠামো, আমাদের চারপাশের প্রযুক্তি এবং অন্যান্য বিভিন্ন প্রভাবের কারণে বহুগুণ হয়ে উঠবে।

শক্তিচালনা ক্রিয়া জাতীয় যোগাভ্যসের মাধ্যমে আপনি পঞ্চবায়ুর দখল নিতে পারেন।

যিনি নিজের প্রাণের দায়িত্ব গ্রহণ করেন, তিনি তাঁর মানসিক ভারসাম্য অবিচল থাকবে বলে একশ শতাংশ নিশ্চিত হতে পারেন। এটি শারীরিক অসুস্থতাগুলিকেও অনেকাংশেই প্রতিরোধ করতে পারে, যদিও আমাদের দৈনন্দিন জীবনে নানা সংক্রমণ এবং বিভিন্ন ধরণের রাসায়নিক ও বিষাক্ত বস্তুর সংস্পর্শে আমরা আসি বলে বিভিন্ন কারণে ঝুঁকি একটু থেকেই যায়। আমরা কী খাচ্ছি সে সম্পর্কে আমরা যতই সতর্ক থাকি না কেন বায়ু, জল এবং খাদ্যের মাধ্যমে আমরা কী গ্রহণ করি তার উপর কোনও নিরঙ্কুশ নিয়ন্ত্রণ নেই। এটি আমাদের উপর কতটা প্রভাব ফেলে তা ব্যক্তিবিশেষের উপর নির্ভর করে।  

বাহ্যিক কারণেই শারীরিক স্বাস্থ্যের শতকরা একশো ভাগ গ্যারান্টি দেওয়া যায় না। তবে আপনি যদি নিজের প্রাণের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন, মানসিক সুস্থতা একশ ভাগ গ্যারান্টিযুক্ত হতে পারে। যদি মানসিকভাবে খুব ভাল জায়গায় থাকেন তবে কয়েকটি শারীরিক সমস্যায় কোনও অসুবিধাই হবে না। বেশিরভাগ সময়, ছোটোখাটো শারীরিক অসুবিধাগুলি আপনার মনে যত প্রতিক্রিয়া ঘটায়, তার চেয়ে কমই সমস্যাজনক থাকে। প্রাণ কীভাবে আপনার মধ্যে কাজ করে, কীভাবে তারা বাকি মহাবিশ্বের সাথে লেনদেন করে, কীভাবে তারা একটি নবজাতকের ভিতর প্রবেশ করে এবং কীভাবে মৃতকে ছেড়ে চলে যায়, এ সমস্ত স্পষ্টভাবে দেখায় যে তাদের নিজস্ব বুদ্ধি রয়েছে।  

শক্তিচালনা ক্রিয়া– আপনার প্রাণ নিয়ে কাজ করা 

পাঁচটি প্রাণ কীভাবে কাজ করছে তা জানতে এটি একটি নির্দিষ্ট মাত্রার মনোযোগ এবং সচেতনতার প্রয়োজন। শক্তিচালনা ক্রিয়া একটি চমৎকার প্রক্রিয়া, তবে আপনাকে মনোযোগী হতে হবে। এর জন্য চল্লিশ থেকে ষাট মিনিট নিজের মনঃসংযোগ রাখা প্রয়োজন। বেশিরভাগ লোকেরাই পুরো সময় ধরে নিঃশাসের উপর মনোনিবেশ করে রাখতে পারে না। মাঝপথেই, তাদের চিন্তাভাবনাগুলি ঘুরপাক খায় অথবা তারা গুণতি কিংবা ধারাবাহিকতা হারিয়ে ফেলেন। এমন এক পর্যায়ে আসতে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর অনুশীলন লাগে যেখানে আপনি পুরো একটা চক্র ধরে শ্বাসের উপরে মনোসংযোগ রাখতে পারেন।

এ কারণেই শক্তিচালনা ক্রিয়া সর্বদা শূন্যর সাথে একসঙ্গে শেখানো হয়। শূন্য ধ্যান হ'ল নিজেকে এমন জায়গায় নিয়ে আসা যেখানে আপনি চোখ বন্ধ করলে পৃথিবী আপনার অনুভবের বাইরে চলে যায়। এই আশীর্বাদটি আপনাদের সকলের কোনও এক সময় উপার্জন করা উচিত। আপনি যদি নিজেকে এইভাবে তৈরি করেন তবেই আপনি কোন কিছুর প্রতি একাগ্র থাকতে সক্ষম হবেন। জোর করে মনোনিবেশ করে কিছু লাভ হবে না। 

চোখ বন্ধ করলে, আপনার কাছে যে জিনিসগুলি থাকা উচিত তা হ'ল আপনার শ্বাসপ্রশ্বাস, হৃদস্পন্দন, আপনার শারীরিক প্রক্রিয়া এবং আপনার প্রাণের কাজ। ভিতরে যা ঘটছে তাই জীবন। বাইরের দিকে যা ঘটছে তা কেবল মায়া।

মনোনিবেশই হলো চাবিকাঠি 

শূন্য ও অন্যান্য সাধনা সেদিকে লক্ষ্য করেই। আপনি কতদূর যাবেন তা একটি আলাদা প্রশ্ন, বিশেষত আজকের দুনিয়াতে। আশেপাশের জীবনে আজ যা ঘটছে আমি তার বিরুদ্ধে নই। তবে দুর্ভাগ্যক্রমে, অস্থিরতাই রেত্তয়াজ হয়ে উঠেছে – গভীরতা নিঃশেষিত। এই ধরনের মনোভাবের সাথে চললে আপনার জীবন কীভাবে কাজ করে সেদিকে মনোযোগ দেওয়ার কোনও উপায় নেই। এর অর্থ এই নয় যে তা কোনো মানুষের পক্ষেই সম্ভব নয় – এটি সম্ভব। পুরোটাই নির্ভর করে যে আপনি একে কতটা গুরুত্ব দেন তার উপর। যদি আপনি এটিকে আপনার এক নম্বর অগ্রাধিকার হিসাবে পরিণত করেন, তবে আপনার মধ্যের সমস্ত কিছু সেই অনুযায়ী নিজেকে সংগঠিত করবে। 

আপনার মধ্যের জীবনই একমাত্র আসল জিনিস – বাকিগুলি কেবলমাত্র চিন্তাভাবনার প্রক্ষেপণ। তবে এই মুহুর্তে, বেশিরভাগ মনোযোগই ছায়ার উপর, আসল জিনিসের উপর নয়।

যদি আপনার অগ্রাধিকারগুলি বিভিন্ন দিকে থাকে তবে আপনি সব জায়গায় ঘুরতে থাকলেও মৌলিক স্তরে জীবনের দিক থেকে কোথাও পৌঁছোতে পারবেন না। সামাজিক স্তরে, আপনি হয়তো কোথাও পৌঁছোতে পারেন। শারীরিক স্তরে, আপনার শরীর সোজা কবরের দিকে যাচ্ছে, খুব বেশি হলে আপনি যাত্রাপথটা কিছুটা প্রসারিত করতে পারেন। আপনার মন গোল হয়ে ঘুরেই চলেছে। আপনি যদি জীবনের মৌলিক প্রকৃতির দিকে মনোনিবেশ করেন তবেই আপনি সত্যিকারের অর্থে কোথাও পৌঁছবেন। আপনার মধ্যের জীবনই একমাত্র আসল জিনিস, বাকিগুলি কেবলমাত্র অনুমান। তবে এই মুহুর্তে, বেশিরভাগ মনোযোগটিই ছায়ার উপর, আসল জিনিসের উপর নয়। 

শক্তিচালনা ক্রিয়া দিয়ে ধীরে ধীরে রূপান্তর ঘটে। আপনার প্রান এবং আপনার সিস্টেমে এর বিভিন্ন ক্রিয়াকলাপের দায়িত্ব গ্রহণ করা একটি দুর্দান্ত প্রক্রিয়া। শক্তি চালনা ক্রিয়া সেই স্তরেই কাজ করে। আপনি যদি এটি অনুশীলন করেন তবে আপনি আপনার সিস্টেমের ভিত্তি জোরদার করছেন।  

শাম্ভবী মহামুদ্রা – প্রাণের ঊর্ধ্বে 

শাম্ভবী মহামুদ্রা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হ'ল এটি সৃষ্টির উৎসকে স্পর্শ করার একটি সাধন, যা প্রাণের সীমানার বাইরে।

শাম্ভবী মহামুদ্রার সম্ভাবনা আছে আপনাকে সেই মাত্রা স্পর্শ করানোর, যা সমস্ত কিছুর ভিত্তি। তবে আপনি সক্রিয়ভাবে এটি ঘটাতে পারেন না। আপনি কেবল পরিবেশটি তৈরী করতে পারেন। আমরা সবসময় শাম্ভবীকে "সে(She)" বলে উল্লেখ করি। শাম্ভবীর ফলনের জন্য ভক্তি থাকতে হবে। আপনি কেবল সৃষ্টির উৎসের সংস্পর্শে আসতে পারেন, এটা নিয়ে আপনার কিছুই করার নেই। শাম্ভবীতে প্রাণায়ামেরও একটি উপাদান রয়েছে, যার বহু উপকার আছে। 

শাম্ভবী মহামুদ্রা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হ'ল এটি সৃষ্টির উৎসকে স্পর্শ করার একটি সাধন, যা প্রাণের সীমানার বাইরে। এটি প্রথম দিনেই ঘটতে পারে, বা হতে পরে যে আপনি ছয় মাস ধরে এটি করছেন কিন্তু কিছুই ঘটছে না। তবে আপনি যদি এটি চালিয়ে যান, সেই দিনটি আসবে যখন আপনি এই মাত্রাটি স্পর্শ করবেন। আপনি যদি এটি স্পর্শ করেন, হঠাৎ করে সমস্ত কিছুই রূপান্তরিত হয়ে যাবে। 

Editor’s Note: Learn Shambhavi Mahamudra Kriya in an Inner Engineering course near you, or explore advanced courses to learn the Shakti Chalana Kriya and Shoonya meditation. Find all upcoming program with the Isha Yoga Program Finder.

A version of this article was originally published in Isha Forest Flower - June 2017.