শিবের তৃতীয় নেত্রের কাহিনী এবং এর অন্তর্নিহিত প্রতীক

সদগুরু শিবের তৃতীয় নেত্রের প্রতীকতা এবং যখন এই তৃতীয় নেত্র উন্মীলিত হয়, কেমন করে স্পষ্টতা এবং প্রত্যক্ষ উপলব্ধির উন্মেষ ঘটে, সেকথা ব্যাখ্যা করছেন। শিব কিভাবে কামকে ভষ্ম করেছিলেন সে সম্পর্কেও তিনি একটি গল্প বলছেন।
Sadhguru Wisdom Article | The Story of Shiva’s Third Eye and Its Hidden Symbolism
 

যখন শিব তাঁর তৃতীয় নেত্র খুললেন

সদগুরু: কিভাবে শিব তার তৃতীয় নেত্র খুললেন সেই সম্বন্ধে একটি গল্প আছে। ভারতবর্ষে প্রেমানুরাগ এবং যৌন কামনার জন্য কামদেব নামে এক দেবতা আছেন। কাম মানে যৌন কামনা। যৌন কামনা এমন একটা জিনিস যা বেশিরভাগ মানুষ সরাসরি স্বীকার করতে পছন্দ করেন না। আপনি একে ঘিরে খানিকটা নান্দনিকতা চান, তাই আপনি এটাকে প্রেমের রূপ দেন! গল্পে আছে কামদেব গাছের পিছনে লুকিয়ে থেকে শিবের হৃদয়ে একটা তীর বিদ্ধ করেন। তিনি এতে একটু বিরক্ত হন। তাই তিনি তাঁর জ্বলন্ত তৃতীয় নেত্রটি খোলেন এবং কামদেবকে পুড়িয়ে ছাই করে ফেলেন। সাধারণত এই গল্পটিই সবাইকে বলা হয়।

কিন্তু দয়া করে একবার নিজেকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন, আপনার লালসা আপনার নিজের ভেতরে জেগে ওঠে, না কি কোন গাছের পিছনে? অবশ্যই এটা আপনার অন্তঃকরণে জাগে। লালসা কেবলমাত্র বিপরীত লিঙ্গকে নিয়ে নয়। প্রত্যেকটি বাসনাই হল লালসা, সে যৌনতার জন্যই হোক, অথবা ক্ষমতা বা পদের জন্য। মূলত লালসা মানে হল আপনার অন্তঃকরণে একরকম অপূর্ণতা বোধ, কোন কিছুর জন্য একটা তীব্র আকাঙ্ক্ষা; যার জন্য আপনার এরকম বোধ হয়, "আমার যদি ওটা না থাকে তাহলে আমি পূর্ণ নই।"

শিবের তৃতীয় নেত্র: যোগিক মাত্রা।

এর উপর ভিত্তি করে, শিব এবং কামদেবের এই গল্পের একটা যোগিক মাত্রা আছে। শিব যোগ সাধনা করছিলেন, যার অর্থ হলো- তিনি শুধু পূর্ণ হওয়ার লক্ষ্যে নয়, পরন্তু অসীম হওয়ার লক্ষ্যে সাধনা করছিলেন। শিব তার তৃতীয় নেত্র উন্মীলিত করলেন এবং কামদেবকে দেখলেন- যা আসলে তার নিজেরই জেগে ওঠা কামনা; এবং তাকে ভস্ম করে দিলেন। তার দেহ থেকে ধীরে ধীরে ছাই নিঃসৃত হতে লাগলো, যার অর্থ ভেতরের সবকিছু চিরকালের মতো শান্ত হয়ে গেল। তৃতীয় নেত্র উন্মীলন করে তিনি নিজের অন্তঃকরণে এমন এক মাত্রা উপলব্ধি করলেন যা অপার্থিব এবং সমস্ত শারীরিক বাধ্যবাধকতা চলে গেল।

 

শিবের তৃতীয় নেত্র আদতে কি?

শিবের তৃতীয় নেত্র এমন একটি নেত্র যা এমন সবকিছু দেখতে পায়- যা জাগতিক নয়। আপনি আপনার হাতের দিকে তাকালে সেটা দেখতে পান, কারণ এটা আলোকে থামিয়ে দেয় এবং প্রতিফলিত করে। আপনি বাতাস দেখতে পান না কারণ বাতাস আলো কে আটকায় না। কিন্তু বাতাসে যদি সামান্য ধোঁয়া থাকে তাহলে সেটা আপনি দেখতে পাবেন কেননা আপনি সেটাই দেখেন, যা আলোকে আটকে দেয়। আপনি এমন কোন জিনিস দেখতে পান না যেটা আলোকে সরাসরি যেতে দেয়। আমাদের চক্ষু ইন্দ্রিয় দুটির প্রকৃতিই এরকম।

তৃতীয় নেত্র বলতে বোঝায় এমন একটি নেত্র- যেটা জাগতিক নয়, এমন সবকিছু দেখতে পায়।

চক্ষু ইন্দ্রিয় দুটি যাকিছু জাগতিক, তা আয়ত্ত করতে পারে। আপনি যখন এমন কিছু দেখতে চান যেটার প্রকৃতি ভৌতিক নয়, তখন তাকে দেখবার একমাত্র উপায় হল অন্তরের গভীরে দেখা। আমরা যখন তৃতীয় নেত্রের কথা বলি, আমরা আসলে প্রতীকী গত ভাবে এমন কিছু দেখবার কথা বলছি, যা চক্ষু ইন্দ্রিয়দুটি দেখতে পায় না। 

চক্ষু ইন্দ্রিয়গুলির বৈশিষ্ট্য হল এরা বহির্মুখী। তৃতীয় নেত্রটি হল আপনার অন্তঃকরণ - আপনার নিজের সত্তা এবং অস্তিত্বের প্রকৃতি দেখবার জন্য। এটা কোন অতিরিক্ত সংযোজন নয় অথবা আপনার কপালে কোন চিড় নয়। উপলব্ধির সেই মাত্রা, যার মাধ্যমে কেউ ভৌতিকতার সীমা ছাড়িয়ে কিছু উপলব্ধি করতে পারেন, তাকে তৃতীয় নেত্র বলে অভিহিত করা হয়।

তৃতীয় নেত্রের মাধ্যমে জীবনকে উপলব্ধি করা 

আরেকটা দিক হল চক্ষু ইন্দ্রিয়গুলো গভীরভাবে কর্মের দ্বারা কলুষিত। কর্ম মানে হল অতীত কাজের পড়ে থাকা অবশিষ্ট স্মৃতি। আপনি যা কিছু দেখতে পান- সে সবকিছুই এই অবশিষ্ট কার্মিক স্মৃতির দ্বারা প্রভাবিত। আপনি এর থেকে ছাড়া পাবেন না। আপনি যদি কারুর দিকে তাকান আপনি ভাববেন, "উনি সুন্দর, উনি সুন্দর নন, উনি ভালো, উনি মন্দ।" আপনি কোন কিছু ঠিক যেভাবে আছে, সেভাবে দেখতে পাবেন না কারণ- কার্মিক স্মৃতি আপনার দৃষ্টি শক্তিকে প্রভাবিত করে এবং আপনার দেখার সামর্থ্যকেও। এগুলো শুধুমাত্র আপনাকে আপনার কর্মের পরিপ্রেক্ষিতেই সবকিছু দেখাবে, আপনার পূর্ব স্মৃতি অনুযায়ী।   

সমস্ত কিছু যথাযথ ভাবে দেখতে হলে একটা তীক্ষ্ণভেদী নেত্র উন্মীলিত করতে হবে, যা স্মৃতি দ্বারা কলুষিত নয়। ঐতিহ্যগতভাবে ভারতবর্ষে জ্ঞান লাভের অর্থ বই পড়া বা কারোর বক্তৃতা শোনা নয়, অথবা তথ্য সংগ্রহ করাও নয। জানার অর্থ হল জীবন সম্পর্কে একটা নতুন দূরদৃষ্টি বা অন্তর্দৃষ্টি উন্মোচন করা। কোনরকম গভীর চিন্তা বা দার্শনিক ভাবধারা আপনার মনে স্বচ্ছতা আনতে পারবে না। যে যৌক্তিক স্পষ্টতা আপনি তৈরি করেন, সেটা খুব সহজেই বিকৃত হতে পারে। জটিল পরিস্থিতি এটাকে তুমুল আলোড়ন এর মধ্যে নিক্ষেপ করতে পারে। 

প্রকৃত স্বচ্ছতা তখনই জেগে ওঠে যখন আপনার অন্তর্দৃষ্টি উন্মীলিত হয়। পৃথিবীতে কোন পরিস্থিতি বা কোন ব্যক্তিই আপনার অন্তরে এই স্বচ্ছতা বিকৃত করতে পারে না। প্রকৃত জ্ঞানের উন্মেষের জন্য আপনার তৃতীয় নেত্রের উন্মীলন অত্যন্ত জরুরী। 

Editor’s Note: In this article, Sadhguru talks about two ways to open the third eye.